পহেলা বৈশাখে আমাদের জীবন যাপন
বিশেষ দিবস, সামাজিক সচেতনতা, সাম্প্রতিক

“পহেলা বৈশাখ ঘিরে আমাদের জীবনযাপন”

“এসো, এসো, এসো হে বৈশাখ” গানটি শুনলেই আমাদের মনে যেন এক অনাবিল উৎসবের আমেজ দোলা দিয়ে যায়। পহেলা বৈশাখ মানে এক বর্ণিল মেলা। এ যেন বাঙ্গালি জাতির নিজস্ব স্বকীয়তা, নিজস্ব পরিচিতি আর বাঙ্গালিয়ানার ষোল আনার প্রকাশ। বাংলা নববর্ষ শহর কিংবা গ্রামের সকল মানুষের কাছে হৃদয় নিংড়ানো উৎসব। পহেলা বৈশাখ ঘিরে আমদের জীবনযাপন বছরের অন্য সময় গুলোর চেয়ে অনেকটাই ভিন্ন।

Continue Reading

পহেলা বৈশাখে আপনার প্রস্তুতি নিয়ে কি ভাবছেন?
জীবনযাত্রা, বিশেষ দিবস, সামাজিক সচেতনতা, সাম্প্রতিক

পহেলা বৈশাখে আপনার প্রস্তুতি নিয়ে কি ভাবছেন?

পহেলা বৈশাখে আপনার প্রস্তুতি নিয়ে কি ভাবছেন? পহেলা বৈশাখ মানেই শুধু আনন্দ উৎসব নয়। এই দিনে অনেক অনাকাংক্ষিত ঘটনা ঘটে যা আমাদের কারোই কাম্য নয়। তাই আমরা যদি আগে থেকে এই দিনটিকে ঘিরে প্রস্তুতি নেই তাহলে পহেলা বৈশাখ আমাদের জীবনে বয়ে আনবে সুখ- সম্মৃদ্ধি ও অনাবিল প্রশান্তি।

আসুন আমরা জেনে নেই পহেলা বৈশাখে খাবার, পোশাক- পরিচ্ছদ ও সার্বিক প্রস্তুতি কেমন হওয়া উচিত।

Continue Reading

সুস্থতাই সকল সুখের মূল
বিশেষ দিবস, স্বাস্থ্য সংবাদ

সুস্থতাই সকল সুখের মূল

সত্যিই কি স্বাস্থ্য সকল সুখের মূল? পরিচিত কারো সাথে দেখা হলে আমরা জিজ্ঞাসা করি, কেমন আছেন? আসলে আমরা জানতে চাই শরীরটা ভালো যাচ্ছে তো? স্বাস্থ্য হচ্ছে একজন ব্যক্তির শারীরিক, মানসিক ও সামাজিক অবস্থার সামগ্রিক কল্যাণকর অবস্থা। স্বাস্থ্যের সাথে আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সবকিছুই জড়িত। স্বাস্থ্য ভালো না থাকলে কোনো কিছুই ভালো থাকে না।

আমরা কেউই অসুস্থ হতে চাই না। অসুস্থ হলে যে শুধু খারাপ লাগে তা-ই নয় বরং অসুস্থতার কারণে দৈনন্দিন জীবনযাত্রাও ব্যাহত হয়। কোনো দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত রোগীর সাথে কথা বললে বোঝা যায় “স্বাস্থ্য ছাড়া সবকিছুই মূল্যহীন”। পরিবেশ দূষণ, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাত্রা, কম শারীরিক পরিশ্রম ইত্যাদি কারণে আমরা অসুস্থ হয়ে পড়ি।

Continue Reading

বনায়ন আমাদের সুস্থ জীবনে কি ভূমিকা রাখে?
পরিবেশ দূষণ, বিশেষ দিবস, সামাজিক সচেতনতা

বনায়ন আমাদের সুস্থ জীবনে কি ভূমিকা রাখে?

অক্সিজেন ছাড়া আমরা কি একটি মূহুর্তও বাঁচতে পারি? অবশ্যই না। আমাদের জীবনে প্রতিটা মূহুর্তে অক্সিজেন প্রয়োজন। আর এই গুরুত্বপূর্ণ উপাদানটির অন্যতম উৎস হল গাছ। অথচ বৃক্ষ রোপনে আমরা কতটা সচেতন? কারণে অকারণে আমরা গাছ কেটে ফেলি। ফলে দিন দিন পরিবেশ তার ভারসাম্য হারাচ্ছে। পরিবেশের ভারসাম্যহীনতার কারণে আমাদের সুস্থ জীবনযাত্রা ব্যহত হচ্ছে।

আসুন আমরা জেনে নেই সুস্থ জীবনে বনায়নের গুরুত্ব কতখানি।

  • সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য আমাদের শরীরে শর্করা, আমিষ, খনিজ পদার্থ, ভিটামিন প্রয়োজন। এই সকল উপাদানের প্রধান উৎস হচ্ছে গাছ।
  • ঠান্ডা গরম আবহাওয়া থেকে সুরক্ষা পাওয়ার জন্য আমরা পোশাক-পরিচ্ছদ ব্যবহার করি। সুস্থতার জন্য বস্ত্রের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। পোশাক তৈরীর অন্যতম কাঁচামাল আসে গাছ থেকে।
  • রোগ নিরাময়ের জন্য আমরা চিকিৎসকের শরণাপন্ন হই। চিকিৎসা ক্ষেত্রে অধিকাংশ ঔষধের প্রধান হচ্ছে গাছ। তাই বেশি বেশি গাছ লাগানো অত্যন্ত জরুরি।
  • সুস্থ থাকার জন্য প্রয়োজন স্বাস্থ্যসম্মত বাসস্থান। আর বাসস্থান তৈরীর অন্যতম কাঁচামাল আসে বৃক্ষ থেকে।
  • আমাদের দৈনন্দিন খাদ্যের একটা বিরাট অংশ আসে কৃষিজাত পন্য থেকে। কৃষিজাত পন্যের উৎপাদন বাড়াতে উর্বর মাটি প্রয়োজন। মাটির উর্বরতা বৃদ্ধিতে গাছের ভূমিকা অপরিসীম।
  • অধিক হারে বৃক্ষ নিধনের ফলে বিভিন্ন ধরনের প্রাকৃতিক দূর্যোগ দেখা দেয়। এই সকল প্রতিকূল অবস্থা আমাদের সুস্থ জীবন যাপনে বাঁধা সৃষ্টি করে। তাই সুস্থ জীবন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বনায়ন আবশ্যক।
  • বর্তমানে অনিয়ন্ত্রিত ভাবে গাছে কেঁটে অপরিকল্পিত ভাবে শিল্প কল-কারখানা গড়ে তোলা হচ্ছে। এই সমস্ত কল-কারখানার কালো ধোঁয়া শ্বাসকষ্ট সহ আরো মারাত্মক রোগের অন্যতম কারণ। তাই আমাদের সুস্থতার জন্য বৃক্ষ নিধন বন্ধ করতে হবে এবং বৃক্ষ রোপনের প্রতি দায়িত্বশীল হতে হবে।

গাছ আমাদের আত্মার আত্মীয়, পরম বন্ধু। গাছ ছাড়া সুস্থভাবে জীবন যাপনের কথা কল্পনাই করা যায় না। তাই আসুন নিজে গাছ লাগাই এবং অন্যকেও এই কাজে উৎসাহিত করি।

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস
জীবনযাত্রা, ডায়াবেটিস, বিশেষ দিবস, সামাজিক সচেতনতা

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে আমাদের পরিবার কি সুরক্ষিত ?

আজ বুধবার ১৪ই নভেম্বর  বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘ডায়াবেটিস প্রতিটি পরিবারের উদ্বেগ’। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক পৃথক  বাণী দিয়েছেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের জনগণের মধ্যে ডায়াবেটিস সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবার বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতিসহ (বাডাস) বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচি পালন করছে Continue Reading

বিশেষ দিবস

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে জীবন্ত যোদ্ধা ”রবি খান”স্যারকে বিন্ম্র শ্রদ্ধা

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ পালিত হচ্ছে সারা বিশ্বে ২১ এ ফেব্রুয়ারিতে । এই ভাষা দিবস আমাদের বাংলাদেশী বাংলাভাষার মানুষের এক গৌরবের অর্জন। সারা পৃথিবীতে একমাত্র আমরাই একমাত্র জাতি যারা ভাষার জন্য প্রান দিয়েছে । আমাদের এই বিজয় আজ গোটা পৃথিবী সম্মানের সাথে স্মরণ করে । পৃথিবীর বিভিন্ন রাষ্ট্রে তৈরি হয়েছে শহীদ মিনার । দেশে ও দেশের বাইরে মাতৃভাষা দিবস নিয়ে চলে অনেক সেমিনার,সিম্পোজিয়াম, অনেক সাংস্কৃতিক অনুস্থান। গনমাধ্যম গুলোতে প্রচারিত হতে থাকে নাটক, সিনেমা বিভিন্ন পত্রিকায় বেরোয় নানান ক্রোড়পত্র । কিন্তু ভাষার জন্য যারা প্রাণ দিয়েছিলো তাদের কি এই উদ্দেশ্য ছিল যে তাদের মৃত্যুর পর তাদের এভাবে সবাই স্মরণ করবে ? জানি ছিলনা তাদের এমন কোন নুন্যতম আকাঙ্খাই ছিলনা। ছিল শুধু মাতৃভাষার সার্বজনিন ব্যবহারের ইচ্ছা আর মায়ের এই ভাষার প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসা । তারা শুধু মায়ের এই ভাষাকে ভালবেসেই জীবন দিয়েছে । দেশ,মাটি আর দেশের মানুষের জন্যই তারা নিজেদের জীবন উৎসর্গ করেছে। কিন্তু আমরা কি স্যতি আজ আমাদের ভাষাকে ভালবাসি ?  রক্তের বিনিময়ে পাওয়া এই ভাষাকে আমরা কি সত্যি ধারন করতে পেরেছি? আমাদের  অনেকের মনেই এমন প্রশ্ন জাগে। যেখানে ইংরেজি ভাষার সাথে বাংলা মিলিয়ে কেমন একটা খিচুড়ি ভাষায় আজকাল সবাই কথা বলে তখন এমন মনে হওয়াটাই স্বাভাবিক।  

Continue Reading

বিশেষ দিবস

সকল ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা

একুশে ফেব্রুয়ারির  ইতিকথা
একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের জনগণের গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন। এদিনটি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবেও সুপরিচিত। বাঙালি জনগণের ভাষা আন্দোলনের মর্মন্তুদ ও গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত দিন হিসেবে পরিচিত।১৯৫২ সালের এ দিনে (৮ ফাল্গুন ১৩৫৯) বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে কয়েকজন তরুণ শহীদ হন। তাদের স্মরণে প্রতিবছর পালিত হয় এ দিবসটি।
Continue Reading