ব্রাউজের ক্যাটাগরি

বিশেষ দিবস

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস
জীবনযাত্রা, ডায়াবেটিস, বিশেষ দিবস, সামাজিক সচেতনতা

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে আমাদের পরিবার কি সুরক্ষিত ?

আজ বুধবার ১৪ই নভেম্বর  বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘ডায়াবেটিস প্রতিটি পরিবারের উদ্বেগ’। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক পৃথক  বাণী দিয়েছেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের জনগণের মধ্যে ডায়াবেটিস সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবার বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতিসহ (বাডাস) বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচি পালন করছে পড়তে থাকুন

বিশেষ দিবস

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে জীবন্ত যোদ্ধা ”রবি খান”স্যারকে বিন্ম্র শ্রদ্ধা

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ পালিত হচ্ছে সারা বিশ্বে ২১ এ ফেব্রুয়ারিতে । এই ভাষা দিবস আমাদের বাংলাদেশী বাংলাভাষার মানুষের এক গৌরবের অর্জন। সারা পৃথিবীতে একমাত্র আমরাই একমাত্র জাতি যারা ভাষার জন্য প্রান দিয়েছে । আমাদের এই বিজয় আজ গোটা পৃথিবী সম্মানের সাথে স্মরণ করে । পৃথিবীর বিভিন্ন রাষ্ট্রে তৈরি হয়েছে শহীদ মিনার । দেশে ও দেশের বাইরে মাতৃভাষা দিবস নিয়ে চলে অনেক সেমিনার,সিম্পোজিয়াম, অনেক সাংস্কৃতিক অনুস্থান। গনমাধ্যম গুলোতে প্রচারিত হতে থাকে নাটক, সিনেমা বিভিন্ন পত্রিকায় বেরোয় নানান ক্রোড়পত্র । কিন্তু ভাষার জন্য যারা প্রাণ দিয়েছিলো তাদের কি এই উদ্দেশ্য ছিল যে তাদের মৃত্যুর পর তাদের এভাবে সবাই স্মরণ করবে ? জানি ছিলনা তাদের এমন কোন নুন্যতম আকাঙ্খাই ছিলনা। ছিল শুধু মাতৃভাষার সার্বজনিন ব্যবহারের ইচ্ছা আর মায়ের এই ভাষার প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসা । তারা শুধু মায়ের এই ভাষাকে ভালবেসেই জীবন দিয়েছে । দেশ,মাটি আর দেশের মানুষের জন্যই তারা নিজেদের জীবন উৎসর্গ করেছে। কিন্তু আমরা কি স্যতি আজ আমাদের ভাষাকে ভালবাসি ?  রক্তের বিনিময়ে পাওয়া এই ভাষাকে আমরা কি সত্যি ধারন করতে পেরেছি? আমাদের  অনেকের মনেই এমন প্রশ্ন জাগে। যেখানে ইংরেজি ভাষার সাথে বাংলা মিলিয়ে কেমন একটা খিচুড়ি ভাষায় আজকাল সবাই কথা বলে তখন এমন মনে হওয়াটাই স্বাভাবিক।  

পড়তে থাকুন

বিশেষ দিবস

সকল ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা

একুশে ফেব্রুয়ারির  ইতিকথা
একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের জনগণের গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন। এদিনটি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবেও সুপরিচিত। বাঙালি জনগণের ভাষা আন্দোলনের মর্মন্তুদ ও গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত দিন হিসেবে পরিচিত।১৯৫২ সালের এ দিনে (৮ ফাল্গুন ১৩৫৯) বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে কয়েকজন তরুণ শহীদ হন। তাদের স্মরণে প্রতিবছর পালিত হয় এ দিবসটি।
পড়তে থাকুন

বিশেষ দিবস

ভ্যালেন্টাইন দিবসের শুভেচ্ছা

বিশ্ব ভালবাসা দিবস বা ভ্যালেন্তাইন্স ডে ও আমরা

“ভালোবাসা” শব্দটি খুব সহজেই মানুষের সহজাত প্রবৃত্তির সাথে মিশে যায়। কেননা জন্মের পর থেকেই মানুষের বেড়ে উঠা এই ভালোবাসাকে কেন্দ্র করেই। আর তাই ভালোবাসার দিনটিকে নিয়ে সকলের ভাবনাটাও থাকে বিশেষ। বিশ্ব ভালবাসা দিবস” বা “ভ্যালেন্টাইন ডে” সারা বিশ্বের কোটি কোটি প্রেমিক যুগল এর জন্য পরম আকাঙ্ক্ষিত একটি দিন। প্রতি বছর ১৪ই ফেব্রুয়ারি একযোগে সারা বিশ্বে এই দিবসটি পালন করা হয়। পৃথিবীতে যতগুলো বিশেষ দিবস রয়েছে তার মধ্যে তরুণ-তরুণীদের নিকট এই দিনটি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ঋতুরাজ বসন্তের ১ম দিনের রেশ কাটতে না কাটতেই এই দিনটি আমাদের সামনে হাজির হয়। বাঙালি তরুণ সমাজে তাই পহেলা ফাল্গুন আর ভালবাসা দিবস যেন এক অন্যরকম উচ্ছাসের দিন । প্রেমিক-প্রেমিকারা এই দিনটিকে ঘিরে সারা বছর জুড়েই কল্পনার জগৎ সাজাতে থাকেন। সকল বাধা-বিপত্তি কে পাশ কাটিয়ে সবাই চায় এই বিশেষ দিবসের কিছুটা সময় প্রিয় মানুষের সান্নিধ্যে কাটাতে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে নানা ধরনের প্রস্তুতিও লক্ষ্য করা যায়। এই যেমন – নতুন পোশাক, সাজসজ্জা, উপহার সহ আরও কত কিছু। এই দিনটির শুরুর গল্পটাও বেশ রঙিন।
পড়তে থাকুন

বিশেষ দিবস

বসন্তের রঙিন শুভেচ্ছা

আজ বসন্ত / পহেলা ফাল্গুন

কবির ভাষায়- ‘ফুল ফুটুক আর নাই ফুটুক আজ বসন্ত’। কিন্তু আজ ফুল ফুটেছে আর জানান দিয়েছে বসন্ত ঋতু আমাদের মাঝে হাজির। প্রকৃতি আজ দক্ষিণা দুয়ার খুলে দিয়েছে আর সে দুয়ারে বইছে ফাগুনের হাওয়া। বসন্তের আগমনে কোকিল গাইছে গান। ভ্রমরও করছে খেলা। গাছে গাছে পলাশ আর শিমুলের মেলা। আজ পহেলা ফাল্গুন। ফাল্গুনের হাত ধরেই ঋতুরাজ বসন্তের আগমন। ঋতুরাজকে স্বাগত জানাতে প্রকৃতির আজ এতো বর্ণিল সাজ। বসন্তের এই আগমনে প্রকৃতির সাথে তরুণ হৃদয়েও লেগেছে দোলা। সকল কুসংস্কারকে পেছনে ফেলে বিভেদ ভুলে নতুন কিছুর প্রত্যয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার বার্তা নিয়ে বসন্তের উপস্থিতি। ফাগুনের মাতাল হাওয়া দোলা দিয়েছে বাংলার নিস্বর্গ প্রকৃতিতে। নতুন রূপে প্রকৃতিকে সাজাবে ঋতুরাজ বসন্ত। ফুলেল বসন্ত, মধুময় বসন্ত, যৌবনের উদ্দামতা বয়ে আনার বসন্ত আর আনন্দ, উচ্ছ্বাস ও উদ্বেলতায় মনপ্রাণ কেড়ে নেওয়ার আজ প্রথম দিন। ফাগুনের আগুন যে মনে ধরছে তা প্রকৃতির চিত্রপটেই বোঝা যাচ্ছে । মৃদু মৃদু বাতাস শীতের রুক্ষতা দূরে করে মনকে উদাস করে দিচ্ছে । বছর ঘুরে আবারো ফাল্গুনের দেখা। ষড় ঋতুর বাংলায় বসন্তের রাজত্ব একেবারে প্রকৃত সিদ্ধ। ঋতুরাজ বসন্তের বর্ণনা কোনো রংতুলির আঁচড়ে শেষ হয় না। কোনো কবি-সাহিত্যিক বসন্তের রূপের বর্ণনায় নিজেকে তৃপ্ত করতে পারেন না। তবুও বসন্ত বন্দনায় প্রকৃতিপ্রেমীদের চেষ্টার যেন অন্ত থাকে না। ফাগুনের আগুনে, মন রাঙিয়ে বাঙালি তার দীপ্ত চেতনায় উজ্জীবিত হবে।
পড়তে থাকুন

বিশেষ দিবস

বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস

সেই ১৯৯৫ সাল থেকে প্রতি মাসের ২৪ তারিখে বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস পালন করা হয়ে আসছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে প্রতি বছরের এই দিনে সারা বিশ্ব ব্যাপী যক্ষ্মা রোগ সম্পর্কে সবাইকে সচেতন করা হয়ে থাকে।

আজ এই বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস –এ চলুন আমরাও জেনে নেই যক্ষ্মা রোগ কীভাবে প্রতিরোধ এবং নিয়ন্ত্রণ করা যায়- পড়তে থাকুন

বিশেষ দিবস

বিশ্ব পানি দিবস

আজ ২২শে মার্চ। প্রতিবছর এই দিনে বিশ্ব পানি দিবস পালন করা হয়ে থাকে। ১৯৯২ সালে রিও ডি জেনেরিওতে ইউনাইটেড নেশনেরর কনফারেন্সে প্রথম এই দিবস পালনের প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। ১৯৯৩ সালে প্রথম বিশ্বব্যাপী এই দিবস পালন করা হয়।

পানি এমন একটি পদার্থ যেটা ছাড়া আমাদের জীবন চলবে না। কিন্তু অনেকেই পানির সঠিক ব্যবহার করতে পারেন না। সঠিক এবং পরিমাণমত পানি ব্যবহার করলে বিভিন্ন রোগব্যাধি থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।
চলুন আজ বিশ্ব পানি দিবস –এ পানি কখন কীভাবে কতটুকু পান করবেন সেটা সম্বন্ধে বিস্তারিত জেনে নেই- পড়তে থাকুন