জীবনযাত্রা, রূপচর্চা

কলা দিয়ে রূপচর্চা!

কলা দিয়ে রূপচর্চা! শুনেছেন কখনও? অনেকে হয়তো জানেন, আবার অনেকেই জানেন না যে পাকা কলা দিয়ে তৈরি মাস্ক ত্বক ও চুলের জন্য খুব-ই উপকারী। শুধু তাই নয়, পাকা কলা চুলে লাগালে তা কন্ডিশনারের কাজ করে। আজ আমরা পাকা কলা দিয়ে তৈরি ত্বক ও চুলের জন্য আলাদা দুটি মাস্ক তৈরি ও ব্যবহারের পদ্ধতি জানবো।

কলা ও মধুর মিশ্রণে তৈরি চুলের মাস্ক

কলা দিয়ে রূপচর্চা করার কথা আসলে প্রথমেই চুলের কথা মনে পড়ে। আজ আমরা মধু দিয়ে কলার একটি মাস্ক তৈরি করবো। কলা ঠিকমত পিষে করে মিহি করে নিবেন। ঠিকমত মিহি না হলে ব্যবহার করবেন না। এতে করে চুলে কলার অংশ লেগে থাকতে পারে।

উপকরণ

৩ টি পাকা কলা (বেশি পাকা হলে ভাল)

৩ টেবিল চামচ মধু

২ টেবিল চামচ টক দই

কিভাবে তৈরি করবেন?

কলা দিয়ে রূপচর্চা করার প্রাথমিক পর্যায়ে উপকরণগুলো একসাথে ভাল করে মিশিয়ে নিন। হালকা পানি পানি করতে চাইলে ১ টেবিল চামচ দুধ মিশিয়ে নিন। চুলে লাগানোর আগে গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে পানি ঝেড়ে নিন।

মিশ্রণটি চুলে মাসাজ করে লাগিয়ে দিন। মাথায় একটি প্লাস্টিকের ক্যাপ এবং গরম রাখার জন্য তার উপর তোয়ালে পেঁচিয়ে রাখতে পারেন। এভাবে ১ ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

আপনি চাইলে এর মধ্যে আপনি এসেনশিয়াল অয়েল, ক্যারিয়ার অয়েল, নারকেল তেল বা অলিভ অয়েল মেশাতে পারেন।

উপকারিতা

কলা আপনার মাথার ত্বক বা স্ক্যাল্পকে হাইড্রেটেড এবং সুস্থ রাখতে সাহায্য করে যা আপনার স্ক্যাল্পের শুষ্কতা, চুলকানি এবং চুল ফাটা কমিয়ে দেয়। নিয়মিত কলা দিয়ে রূপচর্চা করলে আপনার চুলের আর্দ্রতা বৃদ্ধি করে, কোঁকড়ানো চুল মসৃণ করে এবং স্ক্যাল্পের চুলকানি কমিয়ে দেয়।

কলার তৈরি ফেস মাস্ক

কলা দিয়ে রূপচর্চা করার সবচেয়ে আকর্ষণীয় উপাদান হোল ফেস মাস্ক। হাস্যকর হলেও সত্যি, উপরের যে মিশ্রণটি আমারা চুলের জন্য ব্যবহার করলাম সেটাই আবার মুখের জন্য ব্যবহার করা যায় এবং ব্যবহার করার পর যদি কিছু বাকি থাকে তাহলে সেটা আপনি খেতেও পারবেন। নিচের ফেস মাস্কে ৩ টি উপাদান ব্যবহার করা হোল যা আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা আরো বৃদ্ধি করবে। তবে ভুলেও কলার খোসা ফেলবেন না।

উপকরণ

১ টি পাকা কলা

১ টেবিল চামচ ভিটামিন ই অয়েল

১ টেবিল চামচ টক দই

নির্দেশনা

সব উপাদান ভাল করে মিশিয়ে ত্বকের উপর লাগিয়ে ৩০ মিনিট রেখে দিন। কুসুমগরম পানি দিয়ে ভাল করে মুখ ধুয়ে নেওয়ার পর আবার ঠাণ্ডা পানি দিয়ে শেষবারের মত মুখ ধুয়ে নিন।

মুখের দাগ দূর করার জন্য কলার খোসা চোখের উপর লাগিয়ে রাখুন (শসার মত); অথবা ত্বকের যে সব জায়গায় বলিরেখা দেখা গেছে সেখানে লাগান। এভাবে কলা দিয়ে রূপচর্চা করে ত্বকে আমূল পরিবর্তন আনা সম্ভব।

উপকারিতা

কলার তৈরি ফেস মাস্কে থাকে ভিটামিন এ, বি ও ই এবং পটাসিয়াম।

ভিটামিন এ ত্বকের দাগ দূর করে এবং খসখসে ভাব থকে ত্বককে থেকে মুক্তি দেয়।

ভিটামিন বি ত্বককে আর্দ্র করে। এরা ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে এবং ত্বকের বয়স ধরে রাখতে সাহায্য করে।

ভিটামিন ই রক্ষক হিসেবে কাজ করে। এরা সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি, ধুলাবালি এবং অন্যান্য ক্ষতিকারক উপাদান থেকে ত্বককে রক্ষা করে। কলা দিয়ে রূপচর্চা করলে ত্বকের উপর বলিরেখা পড়া থেকেও রক্ষা করে।

পটাসিয়াম ত্বকীয় কোষগুলোকে হাইড্রেট করে এবং আর্দ্রতা ধরে রেখে ত্বক শুষ্ক হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে।

Comments

comments

Previous Post Next Post

You Might Also Like

Leave a Reply